(All) মেডিকেল বই PDF Download

[PDF] বাংলা রেপার্টরি PDF Download

আজকে আমরা আপনাদের কে বাংলা রেপার্টরি PDF Download লিংক দিবো। তাহলে চলুন আর দেরী না করে শুরু করা যাক।

বইঃ বাংলা রেপার্টরি PDF Download

টাইপঃ মেডিকেল বই

সাইজঃ ১০এম্বি

বইয়ের নাম : জীবনের রঙ
বইয়ের ধরন : উপন্যাস
লেখক : মোসলেম উদ্দিন সাগর
প্রকাশকাল : ২০২০
প্রকাশনা : আগামী
প্রচ্ছদ : নির্ঝর নৈঃশব্দ
প্রধান চরিত্র : রঙ মিয়া
বাংলা সাহিত্যাঙ্গনে নতুন অনুপ্রবেশ ঘটেছে অসামান্য প্রতিভাধর একজন লেখকের, যার নাম মোসলেম উদ্দিন সাগর।

লেখক মোসলেম উদ্দিন সাগরের রয়েছে সাহিত্যের বিভিন্ন শাখায় পদচারণা। তিনি জন্মগ্রহণ করেন ১৯৮৫ সালের বি-বাড়িয়া জেলার সরাইল উপজেলার অরুরাইন ইউনিয়নের কাকুরিয়া গ্রামে। নিজের কর্মক্ষেত্র ছাড়াও একাধারে কাজ করে যাচ্ছেন সাহিত্য সংস্কৃতি ও বাংলাদেশ টেলিভিশনে।

বাংলা সাহিত্যে গল্প , উপন্যাস, প্রবন্ধ, গান,কবিতাসহ বিভিন্ন শাখায় কাজ করে যাচ্ছেন অসামান্য এই লেখক। তাঁর লেখা উপন্যাসগুলোর মাঝে “জীবনের রঙ ” উপন্যাসটি উল্লেখযোগ্য। উপন্যাসটি ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারী মাসে প্রথম প্রকাশিত হয়।
পশুর জীবন থেকে মানুষের ভালোবাসাময় সমাজের সংগ্রামই জীবনের রঙ উপন্যাসের মূল উপজীব্য বিষয়।

লেখক খুবই সাবলীলভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন একটি ঘুনে ধরা সমাজের চিত্র। যেখানে রয়েছে কুসংস্কারের অন্ধকারে ডুবে যাওয়া আলোর শিখা, নেতৃত্বদানকারী ব্যক্তিদের একচেটিয়া অধিকার,রয়েছে অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী কন্ঠের প্রতি অবিচার, রয়েছে অমানবিকতার ও অনৈতিকতার গল্প। পুরো উপন্যাস জুড়ে রয়েছে হৃদয়ফাটা আর্তনাদ, পশুর জীবন থেকে বেড়িয়ে আসার জন্য হাহাকার এবং কীভাবে বেড়িয়ে আসা যায় তার শিক্ষা।

জীবনের রঙ উপন্যাসটিতে লেখক রঙ মিয়া নামের এক ব্যক্তিকে প্রধান চরিত্ররুপে চিত্রিত করেছেন।যদিও রঙ মিয়া প্রধান চরিত্র, কিন্তু তার ছেলে বৃন্তের ভূমিকা ছিল উল্লেখযোগ্য। রঙ মিয়াকে কেন্দ্র করে গড়ে বিভিন্ন চরিত্রের মাধ্যমে তুলে ধরেছেন বিভিন্ন আঙ্গিকে, বিভিন্ন ধারার, বিভিন্ন জীবনের রঙ। রঙ মিয়া একজন প্রথম শ্রেনীর সরকারি কর্মকর্তা হয়েও ফিরে এসেছিলেন গ্রামে মানুষকে প্রকৃত শিক্ষা দিতে। রঙ মিয়ার জীবনে ছিল প্রকৃত রঙ।

লেখক এখানে রঙ শব্দটিকে জীবনধারা শব্দটির প্রতীক হিসেবে ব্যবহার করেছেন। রঙ মিয়া চাইতেন তার জীবনের রঙ দিয়ে ঘুনে ধরা,কুসংস্কারাচ্ছন্ন সমাজকে পরিবর্তন করতে। এরই বাস্তব রুপ দিতে স্ত্রী কুলসুম ও একমাত্র সন্তান বৃন্ত কে রেখে নিরুদ্দেশ হন তিনি। গড়ে তুলেন “মানুষের পাঠশালা” নামক একটি প্রতিষ্ঠান ।

See also  [PDF] অব্যর্থ হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা PDF Download

যেখানে তুলে আনা হত গ্রামের তরুণদের, শিক্ষা দেওয়া হত মনুষ্যত্বের।সেখানে তরুণদের প্রকৃত শিক্ষায় শিক্ষিত করে, আলোর প্রদীপ দিয়ে সমাজ সংস্কারে পাঠানো হত।বর্তমান সমাজের প্রেক্ষাপটে রচিত এই উপন্যাসটিতে রয়েছে মানুষ গড়ার হাতিয়ার। তরুণ প্রজন্মের হাত ধরে কীভাবে একটি সমাজকে অন্ধকার থেকে আলোতে নিয়ে আসা যায় তারই শিক্ষা দেওয়া আছে উপন্যাসটিতে।

লেখক উপন্যাসটিতে অত্যন্ত সুনিপুণ ভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন বর্তমান সমাজের চিত্র এবং তা থেকে উত্তরণের উপায়।
উপন্যাসটিতে লেখক মোসলেম উদ্দিন সাগর অনেকগুলো উক্তি তুলে ধরেছেন যা আমার কাছে খুবই বাস্তবিক এবং গুরুত্বপূর্ণ মনে হয়েছে।সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি উক্তি নিম্নে দেওয়া হল –

১) ভাঙ্গা পা-ই গাতায় পড়ে,আবার গাতায় না পড়লে ভালা পথ চিনন যায়না।
২) আমরা শিক্ষিত তৈরী করলেও ভালো মানুষ তৈরী করতে পারিনি!এটাই আমাদের ব্যর্থতা!
৩) এ সমাজে কোনো মানুষ থাকেনা, থাকে দল,গোত্র আর তেলবাজরা।সবাই যেন কালো চশমা পড়া অন্ধ!
৪) সমাজ থেকে পালিয়ে লাভ নেই,চুপ থেকেও লাভ নেই।সচেতন সবার একতা প্রয়োজন। অন্যায়কারীরা সংঘবদ্ধ কিন্তু সাধারণ মানুষের মধ্যে বিশ্বাস ও সম্প্রীতির বড় অভাব!

৫)ত্যাগ ছাড়া মহৎ কাজ হয়না।
৬) মানুষের চরিত্র একটি বৃত্তের মতো,বিন্দু থেকে এর শুরু হয়। কোনো একটি বিন্দু খসে গেলেউ এর লাইনচ্যুতি ঘটে,তার চলন ভারসাম্য নষ্ট হয়।
৭) যেভাবে শুধু বাঁচার জন্য মানুষ নিজের অস্তিত্ব হারিয়ে ফেলছে, এভাবে যদি মানুষ চরিত্রের বিবর্তন ঘটে,তবে মানুষ একদিন জঙ্গলেই বাস করবে। আর পশুরা বাস করবে সমাজে!
অসাধারণ এই উপন্যাসটি পড়ে আমার তীব্র ইচ্ছা জাগছে “মানুষের পাঠশালা” প্রতিষ্ঠা করার। যেখানে প্রকৃত শিক্ষায় পূর্ণাঙ্গ একজন মানুষের মত মানুষ হয়ে সমাজ সংস্কারের হাতিয়ার তৈরী করা যাবে। পশুর জীবন থেকে কীভাবে বেড়িয়ে আসা যায়, তা জানতে হলে অবশ্যই উপন্যাসটি সবার পড়া উচিত।

Click here to download

ADR Dider

This is the best site for all types of PDF downloads. We will share Bangla pdf books, Tamil pdf books, Gujarati pdf books, Hindi pdf books, Urdu pdf books, and also English pdf downloads.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
You cannot copy content of this page