(All) আউটসোর্সিং শেখার বই pdf download

(All) জাভাস্ক্রিপ্ট বই PDF Download | Javascript Bangla pdf book free download

আজকে আমরা আপনাদের কে জাভাস্ক্রিপ্ট বই PDF Download | Javascript Bangla pdf book free download লিংক দিবো।

জাভাস্ক্রিপ্ট কী?

জাভাস্ক্রিপ্ট হল ক্রস প্লাটর্ফম অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড স্ক্রিপ্টিং ল্যাঙ্গুয়েজ। জাভাস্ক্রিপ্টের একটি বড় সুবিধা হল একটি ছোট প্রোগ্রামিং এর সাহায্যে অনেক বড় কাজ করা যায়। জাভাস্ক্রিপ্ট হল একটি ইন্টারপ্রিটেড ল্যাঙ্গুয়েজ, যার অথ হল এটার পূর্ববতী কোন কম্পাইলেশনের প্রয়োজন হয় না।

জাভাস্ক্রিপ্ট হল একটি ক্লাইন্ট সাইড স্ক্রিপ্টিং ল্যাংগুয়েজ বা ব্রাউজার স্ক্রিপ্টিং। ক্লাইন্ট সাইড স্ক্রিপ্টিং ল্যাংগুয়েজ এর অর্থ হচ্ছে যে ওয়েব ব্রাউজ করবে তার ব্রাউজার এই স্ক্রিপ্টিগুলোকে run বা execute করবে।

জাভাস্ক্রিপ্ট বই PDF Download | Javascript Bangla pdf book free download

javascript bangla book by safa blog pdf

javascript book by abdullah al faruk pdf

নাম : শার্লক হোমসের দ্য হাইন্ড অফ দ্য বাস্কারভিলস্‌
ক্যাটাগরি : রহস্য, গোয়েন্দা,ভৌতিক, থ্রিলার ও অ্যাডভেঞ্চার।
লেখক: স্যার আর্থার কোনান ডয়েল
প্রকাশনী: : ফারহানা বুকস
পৃষ্ঠা সংখ্যা : ১৪৩
মূল্যঃ- ১৫৬৳
রিভিউ লেখকঃ- Adnan AL Farabi
বইটির ফ্ল্যাপ:- বাস্কারভিলস” ডেভিনশর ডার্মোর এলাকার বেশ প্রভাবশালী এক পরিবার এর নাম। সাধারণত প্রতিটি প্রভাবশালী আর রাজকীয় পরিবারের মতই এই পরিবারে রয়েছে এক অভিশাপ। আছে এক অভিশপ্ত জলা,যে জলা কে এত ভয় পেতেন মি চার্লস, চিঠি পেয়েই সেই জলার কাছে গিয়েছিলেন। কেন? সেই জলা!

যে জলার চোরাবালির মাঝে পানির অতলে হারিয়ে যায় নানা পশু কিংবা মানুষ।আর আছে এক নারকীয় হাউন্ডের অভিশাপের ইতিহাস।এই পরিবারের এক অভিশাপের নাম “হুগাে বাস্কারভিলস” প্রচন্ড উদ্ধত আর উগ্র স্বভাবের ছিলেন এই হুগাে।
কাহিনী সংক্ষেপঃ
ইংল্যান্ডের ওয়েস্ট কান্ট্রিতে অবস্থিত ডেভনের ডার্টমুর। বহু বছর আগের কথা। এই পরিবারের এক অভিশাপের নাম “হুগাে বাস্কারভিলস” প্রচন্ড উদ্ধত আর উগ্র স্বভাবের ছিলেন এই হুগাে। একদিন গ্রামের এক মেয়ে কে জোর করে তুলে। এনেছিলেন। সে মেয়ে নিজেকে বাঁচাতে পালিয়ে গেলেও ফেলে যায় তাঁর নিজের রুমাল। এদিকে হুগাের বেশ কিছু দানবীয় কুকুর ছিল মেয়েটির ফেলে যাওয়া রুমাল শুকিয়ে মেয়েটিকে খোঁজার জন্য পথে নেমে পড়েন।
একসময় এই বাস্কারভিলস এর জলার পাশে মেয়েটিকে পান হুগাে।

লেলিয়ে দেন তাঁর কুকুর। কিন্তু বিধি বাম! মেয়েটি তাে কুকুরের কামড়ে মারা গেলই, রেহাই পাইনি এই শয়তান হুগাে নিজেও।
এক ভয়ঙ্কর দর্শন কুকুরের কামড়েই এই হুগাের মৃত্যু
হয় সেদিনই। হয়ত সেই অসহায় মেয়ে আর তাঁর
পরিবারের অভিশাপতারপর থেকেই শােনা যায় এই জলায় আছে নাকি নারকীয় এবং আগুনের এক হাউন্ড,সেই হাউন্ডের কবলে পড়ে প্রাণ হারিয়েছে। বাস্কারভিলস পরিবারের অনেক মানুষ। সন্ধ্যার পর এইজলার আশেপাশে যেত না কেউ।
এই অভিশাপ এর শুরু হয় বহু বছর আগে হুগাে বাস্কারভিলস নামে এই পরিবারেরই এক সদস্যের ভয়ঙ্কর মৃত্যুর মধ্যে দিয়ে। প্রচন্ড উগ্রো স্বভাবের সেই হুগাের মৃত্যু হয় নিজেরই পােষা ভয়ঙ্কর হাউন্ডের কামড়ে।

সেই থেকে শুরু এই অভিশাপ এর।
এই জলায় ঘুরে বেড়ায় নারকীয় এবং আগুনের এক
হাউন্ড। সেই হাউন্ডের কবলে পড়ে প্রাণ হারিয়েছে
বাস্কারভিলস পরিবারের অনেক মানুষ ।
তিন মাস আগে শেষ প্রাণ হারালাে চার্লস বাস্কারভিলস নামের এক বৃদ্ধ। যদিও তদন্তে মনে হচ্ছে স্বাভাবিক হার্ট অ্যাটাক । কিন্তু চার্লসের বন্ধু ডক্টর জেমস মর্টিমারের কাছে এটাই বেশ অস্বাভাবিক মনে হয়।কিন্তু কেন?কারণ চার্লসের মৃতদেহের পাশে পড়ে ছিল বেশ কয়েকটি দানবীয় হাউন্ডের পায়ের ছাপ। আশে পাশে সেদিন অনেকেই শুনেছেন হাউন্ডের দানবীয় আওয়াজ।
স্যার হেনরী বাস্কারভিলস, এই পরিবারের একমাত্র
জীবিত সদস্য এবং এই বাস্কারভিলসের বিশাল সম্পত্তির একমাত্র উত্তরাধিকারী । স্যার চার্লসের ভাতিজা তিনি । ডক্টর মর্টিমারের ধারণা তার জীবন হুমকির মুখে। কারণ কেউ একজন চাইছেনা যে বাস্কারভিলসের কেউ বেঁচে থাকুক। হােমসের বাসায় তৃতীয় বারের মত স্যার হেনরীকে সাথে নিয়ে আসেন ডক্টর মর্টিমার।এদিকে ঠিক সেদিন ঘটে বেশ কিছু ঘটনা।

হেনরীর কাছে আসে উড়াে চিঠি, দুই বারে দু’পাটি জুতাের একটা করে খােয়া যায়। একটা একদমই নতুন অন্যটা পুরনাে। অন্যদিকে হেনরী-মর্টিমার কে ফলাে করছিল এক চাপ দাঁড়ি আলা লােক। হেনরীকে একা ছাড়তে সাহস পান না
হােমস। তাই সাথে ওয়াটসন কে ডেভিনশর ডাক্ট্রোর
এলাকাতে পাঠান। এমনকি এই দুইজন এর জন্যই
তাকেও বেশ চিন্তিত দেখায়। খুব সাবধানে থাকতে বলেন হােমস। সাথে এটাও বলেন। প্রতি ঘটনার সম্পূর্ণ বিবরণ যেন রােজ ডক্টর ওয়াটসন পাঠান হােমস কে। ভাবুন আজ থেকে ১১৭ বছর আগে
যােগাযােগ এত সহজ তাে ছিল না।এদিকে যেদিন ওয়াটসন আর হেনরী এখানে আসেন, সেদিন জানা যায় সেলডন নামে এক জেল পালানাে খুনে আসামী ঘুরে বেড়াচ্ছে সেই জলার ধারে। ডার্ক্সোর এর অভিশপ্ত ওই জলার আশেপাশে দেখা গেছে ওই খুনী সেলডনকে। অন্যদিকে বাস্কারভিলস প্রাসাদে ঢুকতেই চাপ দাড়ি আলা বাটলার ব্যারিমাের। কিছুক্ষণ পর গল্পে আসে তার স্ত্রী।

কিন্তু একি? হেনরী আসতেই এখান থেকে পালাতে চাইছেন তারা! কিন্তু কেন? ব্যারিমাের আর তার স্ত্রীর আচরণে বেশ অস্বাভাবিকতা ।
একদিন জানা যায়, ঠিক মৃত্যুর দিন লরা লিউন্স নামে এক নারীর চিঠি পেয়েছিলেন স্যার চার্লস, কিন্তু পুড়িয়ে ফেলেছিলেন সেই চিঠি, তাহলে কি এক নারী জড়িত এই ঘটনায়? নাকি অন্য কিছু? নানা খোঁজ খবর নিয়ে জানা যায়,এই জলায় নাকি মাঝে
মধ্যেই এই ভয়ানক হাউন্ডের ডাক শােনা যায়, আবার নাকি এক আগুনের হাউন্ডও দেখা গেছে।এই হাউন্ডের ডাক কে পাখির ডাক বলেন কেউ একজন।
অন্যদিকে জলায় সেলডনের পাশাপাশি অন্য এক অদ্ভুত দর্শন ব্যক্তিকে দেখা যায়। একদিন বেশ সন্দেহজনক এই লােক কে খুঁজতে তার বাসস্থানের কাছে পৌঁছান ওয়াটসন। এই লােক এর কাছে খাবার পৌঁছে দিচ্ছে গ্রামেরই কেউ। এইদিন সন্ধ্যায় জলার ছােট টিলার উপর থেকে পড়ে মারা যান এক ব্যক্তি। সন্ধ্যা নাগাদ শােনা যায় দানবীয় হাউন্ডের ডাক। আর ভয়ঙ্কর দানবীয় হাউন্ডের ডাকে ভয় পেয়ে পিলে চমকে গিয়ে জ্ঞানশুন্য হয়ে ছুটে পালাতে গিয়েই টিলা থেকে পড়ে মারা যান তিনি। লাশ এর পরনে স্যার হেনরীর কোট। তাহলে কি স্যার হেনরীরও মৃত্যু হল অকালে?
নানা কুকর্মের জন্য বিখ্যাত রজার আর বেরিল গার্সিয়া দম্পত্তির আগমন ঘটে গল্পে।

কারা এরা? নানা অভিযােগে অভিযুক্ত এই দম্পত্তি নাকি লুকিয়ে আছেন ডার্ক্সোরের কাছেই কোথাও।কাহিনীর এমন সময়ে বাস্কারভিলস হলে আগমন হােমসের।।
তারপর? তারপর যা হলাে……..
তা জানার জন্য বইটা পড়তে হবে আপনাকে।
কে আসল খুনী? স্যার হেনরি মারা যাবার সাথে সাথে কি শুন্য হয়ে গেল বাস্কারভিলস হল? এই যে আগুনের হাউন্ড কি বাস্তব নাকি সত্যিকার অর্থেই কোন নারকীয় দানব। কি আছে এই জলার রহস্যে?
আজ থেকে ১১৭ বছর আগে তিনি যা লিখে গেছেন, তা আজ ২০২১ সালে বসে আজকের এইসময়ের কোন ঘটনা বলে মনে হয়। শুধু হাতে মুঠোফোনের বদলে সেদিন ছিল টেলিগ্রাম। আচ্ছা ২২১/বি বেকার স্ট্রীট তাে আজ নেই, কিন্তু বাস্কারভিলস হল কি আছে? এখন ও কি কোন হাউন্ড ঘুরে বেড়ায় বাস্কারভিলস হলে? কিংবা কোন নারকীয়-দানবীয় হাউন্ড ঘুরে বেড়াচ্ছে তার জলার ধারে? ওই যে হাউন্ডের ডাক শুনছেন? আকাশ বাতাশ কাঁপিয়ে ঘেউউউউ করে উঠল কি ওটা?
? ধন্যবাদ সবাইকে ?
? হ্যাপী রিডিং ?

বই পড়া নিয়ে মনীষীদের উক্তি…..
১। ভালো খাদ্য বস্তু পেট ভরে কিন্ত ভাল বই মানুষের আত্মাকে পরিতৃপ্ত করে।

  • স্পিনোজা।
    .
    ২। ভালো বই পড়া মানে গত শতাব্দীর সেরা মানুষদের সাথে কথা বলা।
  • দেকার্তে
    .
    ৩। অন্তত ষাট হাজার বই সঙ্গে না থাকলে জীবন অচল।
  • নেপোলিয়ান
    .
    ৪। প্রচুর বই নিয়ে গরীব হয়ে চিলোকোঠায় বসবাস করব তবু এমন রাজা হতে চাই না যে বই পড়তে ভালবাসে না.
  • জন মেকলে
    .
    ৫। আমি চাই যে বই পাঠরত অবস্থায় যেন আমার মৃত্যু হয়।
  • নর্মান মেলর
    .
    ৬। একটি ভালো বইয়ের কখনোই শেষ বলতে কিছু থাকে না।
  • আর ডি কামিং
    .
    ৭। একটি বই পড়া মানে হলো একটি সবুজ বাগানকে পকেটে নিয়ে ঘোরা।
  • চীনা প্রবাদ
    .
    ৮। একজন মানুষ ভবিষ্যতে কী হবেন সেটি অন্য কিছু দিয়ে বোঝা না গেলেও তার পড়া বইয়ের ধরন দেখে তা অনেকাংশেই বোঝা যায়।
  • অস্কার ওয়াইল্ড
    .
    ৯। বই হলো এমন এক মৌমাছি যা অন্যদের সুন্দর মন থেকে মধু সংগ্রহ করে পাঠকের জন্য নিয়ে আসে।
  • জেমস রাসেল ।
    .
    ১০। আমাদের আত্মার মাঝে যে জমাট বাধা সমুদ্র সেই সমুদ্রের বরফ ভাঙার কুঠার হলো বই। – ফ্রাঞ্জ কাফকা ।
    .
    ১১। পড়, পড় এবং পড়।
  • মাও সেতুং
    .
    ১২। জীবনে তিনটি জিনিসের প্রয়োজন- বই, বই এবং বই।
  • ডক্টর মুহম্মদ শহীদুল্লাহ।
    .
    ১৩। বই হচ্ছে অতীত আর বর্তমানের মধ্যে বেঁধে দেয়া সাঁকো।
  • রবীন্দ্রনাথ
    ..
    ❤ বই ❤

আজকে আমরা আপনাদের কে জাভাস্ক্রিপ্ট বই PDF Download | Javascript Bangla pdf book free download লিংক দিয়েছি।

ADR Dider

This is the best site for all types of PDF downloads. We will share Bangla pdf books, Tamil pdf books, Gujarati pdf books, Hindi pdf books, Urdu pdf books, and also English pdf downloads.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button