Bangla islamic Books PDF

(1-12) তাফসীরে মাযহারী ইসলামিক ফাউন্ডেশন pdf download | Tafsir Mazhari Bangla pdf free download

আজকে আমরা আপনাদের কে অতি আগ্রহের বই তাফসীরে মাযহারী ইসলামিক ফাউন্ডেশন pdf download | Tafsir Mazhari Bangla pdf free download লিংক দিবো।

তাফসীরে মাযহারী ইসলামিক ফাউন্ডেশন pdf download | Tafsir Mazhari Bangla pdf free download

Tafsir Mazhari Part-1

Tafsir Mazhari Part-2

Tafsir Mazhari Part-3

Tafsir Mazhari Part-4

Tafsir Mazhari Part-5

Tafsir Mazhari Part-6

Tafsir Mazhari Part-7

Tafsir Mazhari Part-8

Tafsir Mazhari Part-9

Tafsir Mazhari Part-10

Tafsir Mazhari Part-11

Tafsir Mazhari Part-12

♥♥♥♥ রিভিউ ♥♥♥♥
বই : মিরআতুল মামালিক : দ্য এডমিরাল
মূল : সাইয়িদি আলি রইস
অনুবাদ : Salahuddin Jahangir
প্রকাশনী : নবপ্রকাশ
প্রচ্ছদ : কারুকাজ
পেজ : ১১৯
মুদ্রিত মূল্য : ১৫০
কাহিনী সংক্ষেপ : সাইয়িদি আলি রইস বা ইংরেজিতে সিদি আলি রেইজ একজন উসমানী খেলাফতের তুর্কী নৌসেনাপতি। তদানীন্তন উসমানী সাম্রাজ্যের অধীশ্বর সুলতান সুলেমান সাইয়িদি আলি রইসকে ভারত মহাসাগরের এডমিরালের পদে নিযুক্ত করেন। মূলত পর্তুগিজ দস্যুর মূলৎপাটন করাই ছিল আসল উদ্দেশ্য। বসরা থেকে বিশাল রণতরী নিয়ে বেরিয়ে পড়েন খোলা সাগরে। একটি দ্রুতগামী সতর্কীকরণ জাহাজ তাদের আগে আগে হরমুজ প্রণালী ঘুরে এসে খবর দেয় সেখানে কোন পর্তুগিজ জাহাজ দেখা যায়নি। কিন্তু ভাগ্য বলে একটা ব্যাপার আছে। মানুষ ভাবে এক আর হয় আরেক। এডমিরাল সাইয়িদি আলি রইসের ভাগ্যেও ঠিক এরকমই ঘটল। হরমুজ প্রণালী পার হতে না হতেই সম্মুখীন হলেন পর্তুগিজ দস্যুদের। উভয় দলের মাঝে সে কী ভয়াবহ যুদ্ধ! সমুদ্রের বুক যেন ভয়ঙ্কর কোন উন্মত্ত খেলায় মেতেছে। সেবার পর্তুগিজ দস্যুরা পিছু হটলেও পরের বার ঠিকই ক্ষিপ্র চিতার ন্যায় হামলে পড়ে। একদিকে পর্তুগিজ দস্যু আরেক দিকে উত্তাল সমুদ্রের রুদ্রঝড়। কোনটাকে সামলাবেন? পর্তুগিজ দস্যু না হয় গেল কিন্তু সমুদ্রের এ ভয়াল রুপ আর ভয়ঙ্কর ঘূর্ণির প্যাচ থেকে বাঁচবেন কিভাবে?
পাঠ প্রতিক্রিয়া : কাহিনী আসলে উত্তেজনাকর ঐ ভয়াল সমুদ্র পর্যন্তই। পরে যখন এডমিরাল সাইয়িদির রণতরী অচল হয়ে যায় তখন তিনি স্থলপথে ফিরে আসেন তার নিজ বাসভূমি ইস্তাম্বুলে। এই ফিরে আসার দীর্ঘ জার্নিতেও ঘটে গেছে বহু অপ্রীতিকর আর রাজনৈতিক ঘটনা যেগুলো কিসের কারণে যানি আমার কাছে খুবই বিরক্ত লেগেছে। মনে হয়েছে বর্ণনা ভঙ্গী আরেকটু সাবলীল বা সহজিয়া বা গতিময় যাই হোক হলে এ সফরটাও উত্তেজনাকর হতে পারত। এটা লেখক বা অনুবাদক কার ব্যাপার তা আমি বলতে পারব না, আমার কাছে যা মনে হয়েছে তাই বললাম। এই স্থলপথের সফরে বিভিন্ন রাজ্য তাকে ঘুরে যেতে হয়েছে, প্রতিটা রাজ্যেই কোন না কোন সমস্যার কারণে থামতে হয়েছে। এর সাথে সামাঞ্জস্য রেখেই হয়তো লেখক বইটির নামকরণ করেছেন মিরআতুল মামালিক ( রাজ্য দর্শন) একটা ব্যাপার বুঝিনি, সাজা ভাই নাকি চট্রগামের ইতিহাস ঘাটতে গিয়ে পেয়েছেন এই সাইয়িদি আলি রইস চট্রগামেও এসেছিলেন। তার ভ্রমণকাহিনীতে কিন্তু এদিকে আসার বিবরণ নাই। মন্দ ভাল যাইহোক কিছু উপকার তো পেয়েছি বইটিতে। যেমন এই এডমিরাল ধার্মীক ছিলেন, তার ভ্রমণের মাঝেই বিভিন্ন স্থানে বড় বড় মনীষী দিকপালদের মাজার জিয়ারত করেছেন। অনেকের মাজার কোথাই আছে এর আগে জানতামই না। অন্যদিকে তার খলিফা সুলতান সুলেমানের ব্যাপারেও জানার আগ্রহ মনের ভিতর উঁকি দিচ্ছে।
বইটির একটি অমর বানী
বিবদমান দুটি পক্ষের মধ্যে শান্তি স্থাপিত হয় দুটি বিষয়ের উপর ভর করে – বন্ধুর প্রতি সৌজন্যতা এবং শত্রুর প্রতি সম্মান।

See also  (All) ডা: শামসুল আরেফিন বই PDF Download | Shamsul Arefin books Pdf Download

বই- রক্তবীজ।
লেখক- পিটার ট্রিমেন।
অনুবাদ- খসরু চৌধুরী।
ধরন- হরর।
প্রকাশনী- প্রজাপতি।
একটি মেয়েলী ঝামেলায় পড়ে ইতালি ছাড়তে হয় মার্সিয়াকে। তবে গন্তব্যও খুজে পেতে দেরী হয়না তার। যখন তার ইতালি ছাড়ার প্রয়োজন তখনই তার পূর্বপুরুষের সাম্রাজ্য ওয়ালাচিয়া থেকে তার দুই ভাই ভ্ল্যাদ ও মিহাইলের চিঠি আসে। চিঠিতে জানা যায় তাদের বাবা ওয়ালাচিয়ার প্রিন্স ড্রাকুলা মারা গেছেন। ভাইদের অনুরোধ মার্সিয়া যেনো এসে বিষয় সম্পত্তির ভাগ বুঝে নেয়। চিঠি মোতাবেক ওয়ালাচিয়া রওনা হয় মার্সিয়া। কিন্তু সেখানে যাওয়ার পূর্বেই কিছু অদ্ভুত অভিজ্ঞতার সম্মুখীন হয় সে। স্থানীয় লোকজন তার উদ্দেশ্য জেনে তাকে সেখানে যেতে নিষেধ করে। তাদের প্রশ্ন করে পরিষ্কার ভাবে কিছুই জানতে পারেনা মার্সিয়া। শুধু এতোটুকু ধারনা হয় ওয়ালাচিয়ার প্রাসাদে অশুভ কিছু আছে। এক অদ্ভুত গাড়োয়ান তাকে প্রাসাদে নিয়ে যায়। গাড়োয়ানকে দেখে মানুষের চেয়ে শয়তানই মনে হয় বেশী। তবে ভাইদের প্রতি আত্মিক টানের কারনে এতোকিছু নিয়ে ভাবনায় বসে না মার্সিয়া। প্রাসাদে যেয়ে ভাইদের সাথে সাক্ষাৎ হয় মার্সিয়ার। তবে শুধু রাতেই তাদের দেখা পায় মার্সিয়া। দিনের বেলা ভাইরা কোথায় থাকে তা জানা যায় না। অদ্ভুত এই বাড়িতে কোনো কাজের মানুষেরও দেখা পায় না সে। রাতে কাজের এক মেয়ে আসে তার সাথে দেখা করতে। সে নিজেকে গাড়োয়ানের মেয়ে বলে পরিচয় দেয় এবং মার্সিয়াকে যতো দ্রুত সম্ভব প্রাসাদ ছেড়ে চলে যেতে বলে। ঠিক পরের রাতেই এই মেয়েই কেমন বদলে গিয়ে মার্সিয়ার কাছে নিজেকে সপেঁ দিতে আসে। ধীরে ধীরে এক ভয়ঙ্কর সত্য জানতে পারে মার্সিয়া। তার বাবা কাউন্ট ড্রাকুলা যে নিজেকে ড্রাগন বা শয়তানের পূত্র বলে মনে করে সে নিজেই এক ভয়ানক শয়তানি শক্তিতে পরিণত হয়েছে। এই অশুভ শক্তির কুদৃষ্টিতে পড়ে কাউন্টেস আইরিন ব্যাথোরির ওপর। একা মার্সিয়ার ক্ষমতা নেই বাবার অশুভ শক্তিকে মোকাবেলা করার। সে পাশে পায় বন্ধু জনকে। দুজনে মিলে কাউন্টেস আইরিনকে অনেক কষ্টে উদ্ধার করেন আনে এবং ব্যাপারটা শেষ করার জন্য হানা দেয় ক্যাসল অব ড্রাকুলায়। কিন্তু ভ্যাম্পায়ার বাবা ও ভাইদের বিরুদ্ধে কিভাবে লড়বে মার্সিয়া? ওকেও তো ভ্যাম্পায়ার বানানোর জন্যই নিয়ে আসা হয়েছে ক্যাসল অব ড্রাকুলায়।
এই বইয়ের পটভূমি ড্রাকুলা পূর্ববতী সময়ের। ব্রাম ষ্টোকারের বইতে তার ক্ষতিকর ব্যাপার স্যাপার এলেও সে কিভাবে ভ্যাম্পায়ারে পরিণত হয় তা সেখানে উল্লেখ্য নেই। এ বইতে সেই ব্যাপার এসেছে। কিভাবে সে মানুষ থেকে আনডেড ভ্যাম্পায়ারে পরিণত হলো তার বিশদ বিবরণ দেওয়া হয়েছে। ড্রাকুলার পূর্বপুরুষ, তাদের ইতিহাস, সাম্রাজ্য ইত্যাদি সমগ্র ব্যাপার উল্লেখ্য করা হয়েছে। উল্লেখ্য ড্রাকুলার বেশকিছু ব্যাপার নেওয়া হয়েছে ইতিহাস থেকে। ওসমানী শাসনাধীন সময়ে ভ্ল্যাড দ্য ইমপালার নামে সত্যিই একজন কাউন্ট ছিলেন রোমানিয়ার কার্পেথিয়ান অঞ্চলে। তিনি ওসমানীদের অনুগত ছিলেন তবে সুযোগ পেলে বিদ্রোহও করে বসতেন। সেখান থেকেই এসেছে এই কাউন্ট ড্রাকুলা মিথ। বাস্তব ড্রাকুলা ছিলেন খুব অত্যাচারী। অন্তত তাই জানা যায় তার সর্ম্পকে। বইতেও তার সেই নেগেটিভ চরিত্রই ফুটে উঠেছে। তবে একটু অলৌকিকভাবে। আশা করি সবার ভালো লাগবে। কেনোনা এই হরর ইতিহাসের সাথে সংযুক্ত।
রেটিং- ৪.৪০/৫.০০

রিভিউ :
বই:ব্রাইডা
লেখক: পাওলো কোয়েলহো।
অনুবাদ: প্রিন্স আশরাফ।
ব্রাইডা অ’ফার্ন একজন সাধারণ আইরিশ তরুণী যে পড়তে এসে বাবার পাঠানো টাকায় কমতি হওয়ায় একটা দোকানে কাজ নেয়,সপ্তাহান্তে বয়ফ্রেন্ডের সাথে ঘুরে বেড়ায়,।সাধারণ জীবন যাপনে অভ্যস্ত কিন্তু যে সারাক্ষণ অনুভব করে শুধু ঘড়ির কাটার মত এভাবে চলার জন্য ইশ্বর আমাদের তৈরি করেন নি।আমাদের ভেতরে কিছু সুপ্ত আছে,কিছু সম্ভাবনা,কিছু রহস্য যা আমাদের জাগরিত করতে হবে।এজন্য তার প্রয়োজন একজন পথপ্রদর্শক যে তাকে শেখাবে আত্মাকে অনুসরণ করে ইশ্বরের শক্তি খোজা, নিজেকে অনুভব করা।
তার শিক্ষক ম্যাগাস তাকে শেখান কিভাবে রাতের অন্ধকার থেকে আলোর সৌন্দর্য বুঝতে,ধৈর্য ধারণ করতে হয়।
তিনি সূর্য ও চাঁদের রীতিনীতি সম্পর্কে ধারনা দেন।তারপর ব্রাইডাকে ডাইনি বিদ্যায় শিক্ষা দেন উইক্কা নামের আরেকজন শিক্ষিকা। তিনি তাকে নিজের মনের উপর নিয়ন্ত্রণ করতে শেখান, জানান কিভাবে নিজের ভেতর সৃষ্টিকর্তার অস্তিত্ত অনুভব করতে হয়,তিনি তাকে আত্মার সংগি সম্পর্কে জানান যে কিনা একসময় তার ই দেহের কোন পরমাণু থেকে সৃষ্টি।
ব্রাইডা ধীরে ধীরে বুঝতে পারে সৌন্দর্য সবকিছুতে নিজের মত থাকে, তাকে দেখার দৃষ্টি তৈরি করতে হয়,ভালবাসার প্রচলিত সংগা সবসময় সবার জন্য নয়,আত্মায় ধারণ করার জন্য।
ডাইনিবিদ্যা সম্প্রর্কে অনেক ধারনা প্রচলিত আছে, যেমন তারা শয়তানের পূজারী, প্রানী বলি দেওয়া,যৌনাচার, কালোযাদু ইত্যাদি তাদের ধর্মের অংশ ইত্যাদি। এ বইয়ে এ সম্পর্কে ভাল ধারনা পাওয়া যাবে। নগ্নতা কে আমাদের সমাজে খুব নিষিদ্ধ বিষয় হিসেবেই ধরাহয়।প্রত্যেক সমাজেই এ বিষয়ে তাদের নিজস্ব ভাবধারা থাকে।কিন্তু নগ্নতাকে যে পবিত্র ভাবেও দেখা যায়, এটাকে জন্মাবস্থার মত নিষ্পাপ হিসেবে ভাবা যায় তা লেখক পরিষ্কার বুঝিয়েছেন।
শেষ পর্যন্ত আমাদের শিক্ষক আমরা নিজেই,শিক্ষক আমাদের পথের দিশা দিতে পারেন, চলতে আনাদের ই হবে,নিজের মধ্যেকার শক্তি আমাদের ই জাগাতে হবে।
জীবনের সূক্ষ্ম আবেগ গুলো খুব সুন্দর, আশাপ্রদ ভাবে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে।
ব্রাইডা কোন হাজার বছর আগের রুপকথার কোন চরিত্র না,সে আমাদের মতই একজন যে নিজেকে হতাশাগ্রস্ত না করে নিজের লুকিয়ে থাকা আত্মার শক্তির সাথে পরিচিত হয়েছে। আমাদের উচিত এই বইটি পড়া এবং বিশ্বের খবরের তুলনায় নিজেকে কতটুকু জানি তা বিচার করা।

See also  (New) তাফসীর বায়যাবী PDF Download

বইটিতে যেসব ডাইনিবিদ্যার অনুষ্ঠান এবং আচারের কথা বলা আছে তা কখনোই করার চেষ্টা করা উচিত হবেনা, কারন অনেকটা ধ্যান মগ্ন অবস্থায় মস্তিষ্ক বিভিন্ন রকম প্রতিক্রিয়া দেখাতে পারে।

আপনাদের অতি আগ্রহের বইতাফসীরে মাযহারী ইসলামিক ফাউন্ডেশন pdf download | Tafsir Mazhari Bangla pdf free download লিংক দেওয়াতে আশা করি খুশি হয়েছেন।

ADR Dider

This is the best site for all types of PDF downloads. We will share Bangla pdf books, Tamil pdf books, Gujarati pdf books, Hindi pdf books, Urdu pdf books, and also English pdf downloads.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
You cannot copy content of this page