Bangla islamic Books PDF

(সব খন্ড) তাফসীরে তাবারী pdf free download । Tafsir Tabari Bangla pdf download

আজকে আমরা আপনাদের অনুরোধের বই তাফসীরে তাবারী pdf free download । Tafsir Tabari Bangla pdf download লিংক নিয়ে এলাম।

তাফসীরে তাবারী pdf free download । Tafsir Tabari Bangla pdf download

Tafsir Tabari Part-1

Tafsir Tabari Part-2

Tafsir Tabari Part-3

Tafsir Tabari Part-4

Tafsir Tabari Part-5

Tafsir Tabari Part-6

Tafsir Tabari Part-7

বই রিভিউ
ডার্কফল
মূল: ডিন কুন্টজ
অনুবাদ: তানজীম রহমান
প্রকাশকাল: ২০১৪
বাতিঘর
জেনার: হরর থৃলার (!!!)
এটা আমার পড়া ডিন কুন্টজের প্রথম বই আর তানজীম রহমানের প্রথম অনুবাদ। একটা রসালো ও সুস্বাদু হরর থৃলারের অভিজ্ঞতা লাভের আশায় বইটা শুরু করেছিলাম, কিন্তু শেষ তক আমাকে একরকম হতাশই হতে হয়েছে।
বইটিতে একইসাথে সিরিয়াল কিলিং, ভুডু জাদু, এবং দুই পুলিশ অফিসারের প্রেমের ঘটনার সংমিশ্রন ঘটেছে।
শহরের বুকে একের পর এক খুন হয়ে যাচ্ছে প্রভাবশালী ও সাধারণের চোখে ঘৃন্য ড্রাগ ডিলাররা। কে যেন প্রবল আক্রোশে কারমাতজা পরিবারের বিশাল মাফিয়া সাম্রাজ্য গুঁড়িয়ে দিতে চায়। খুনগুলো হচ্ছেও খুব নৃশংশ ভাবে। প্রত্যেকটা লাশের গায়ে একাধিক কামড়ের দাগ এবং সেগুলো বিভৎসভাবে ছিন্নভিন্ন করা।
এই কেসের তদন্তে নামেন ডিটেক্টিভ জ্যাক ডওসন আর রেবেকা চ্যান্ডলার, যারা পরস্পরের প্রতি অদ্ভুত এক অনুরাগের অনুভূতিতে আবদ্ধ। তাঁরা কেউ এ রহস্যের জট ছাড়াতে পারছিলেননা।
খুনগুলো সংঘটিত হয় সব বদ্ধ ঘরগুলোতে, যেটা মানুষের পক্ষে একেবারেই অসম্ভব। তখন।বেরিয়ে আসে বাবা লাভেল নামে এক বোকোরের (ভুডু জাদুকর বা তান্ত্রিক) হাত আছে এর পেছনে। সে নরক থেকে ডেকে এনেছে কিছু ছোট আকৃতির ভয়ঙ্কর হিংস্র প্রাণী। তারাই ঘটিয়ে চলেছে এসব হত্যাকান্ড। এই প্রাণীগুলোকে লাভেল লেলিয়ে দের ডিটেক্টিভ ডওসনের মেয়ে পেনি আর ছেলে ডেভিকে খুন করার জন্য। তখনই জমে ওঠে শেষ নাটক।
বইটির শেষটা পড়ে আমার মনে হয়েছে, লেখকের খুব তাড়াহুড়া ছিলো। ভুডু তন্ত্রের চর্চার বর্ণনাও খুবই অপ্রতুল বলে মনে হয়েছে। আর, অনুবাদ প্রসঙ্গে বলতে গেলে, অনুবাদক একই অধ্যায়ে নানা রকমের সিচুয়েশন টেনে এনেছেন, কিন্তু প্যারাগুলোতে বিরতি ভালোভাবে না টেনেই। অধ্যায়গুলোও খুব বড় মনে হয়েছে। অনুবাদক ইচ্ছা করলেই ভিন্ন ভিন্ন সিকোয়েন্সের প্যারাগুলো একটু গ্যাপ দিতে লিখতে পারতেন। যাই হোক, অনুবাদের মান মোটামুটি ভালো। ভবিষ্যতে আরো ভালো মান আশা করছি উনার কাছে।
এইতো, আর কি! আমার রেটিং: ২/৫

See also  (New) তাফসীর বায়যাবী PDF Download

<<<<<<< রিভিউ >>>>>>>
বই: সাইলেন্স অব দ্যা ল্যাম্বস আর রেড ড্রাগন ( একত্রে)
লেখক :টমাস হ্যারিস
অনুবাদ : মোহাম্মদ নাজিমুদ্দিন
সাইকোলজি ভালবাসেন কিন্তু সাইলেন্স অব দ্যা ল্যাম্বস পড়লেন না এটা আনফেয়ার। উপন্যাসটা রচিত হয় সিরিয়াল সাইকো কিলার ডর.হ্যানিভ্যাল লেকটার কে নিয়ে। প্রথম গল্পে বাফেলো বিল নামে এক সিরিয়াল কিলার একের পর এক খুন করে যাচ্ছে। FBI অনেক চেষ্টা করেও খুনিকে ধরতে পারছেনা। অবশেষে FBI এর হে’দ জ্যাক ক্রফোর্ড ক্লারিস স্টার্লিং কে নিয়োগ করে। ক্লারিস ডর. লেকটারের কাছে যাই এই সুযোগে ডর. লেকটার ও প্লযান করছে পালানোর। অবশেষে পারবে কী ক্লারিস স্টার্লিং সিরিয়াল কিলার বাফেলো বিলকে ধরতে আর ডর. লেকটার কি পারবে পালাতে তা জানতে পড়ে ফেলুন ‘ সাইলেন্স অব দ্যা ল্যাম্বস ‘
ডর. লেকটার খুব চালাকির সাথে পালাতে সক্ষম হই। FBI এর মোস্ট ওয়ান্টেড লিস্টে এখন তার নাম। তাকে অনেক চেষ্টার পর ও ধরতে পারছেনা। অবশেষ জ্যাক ক্রফোর্ড হাজির হল অবসরপ্রাপ্ত অফিসার উইল গ্রাহাম এর নিকট যে তিন বছর আগে লেকটারকে গ্রেফতার করেছে। কিন্তু ক্রফোর্ড বুজতে পেরেছে গ্রাহাম কে নিয়োগ দিয়ে চরম ভুল করেছে। অবশেষে পারবে আবার ডর. লেকটারের মত চালাক সাইকিয়াট্রিস সিরিয়াল কিলারকে ধরতে জানতে তারাতারি পড়ে ফেলুন ‘রেড ড্রাগন ‘

|| রিভিউ ||
বই : নরওয়েজিয়ান উড
মূল : হারুকি মুরাকামি
অনুবাদ : কৌশিক জামান
প্রকাশক : বাতিঘর প্রকাশনী
প্রকাশকাল : বইমেলা, ২০১৭
ঘরানা : মনস্তাত্ত্বিক উপন্যাস/সমকালীন সাহিত্য/জীবনমুখী উপন্যাস
পৃষ্ঠা : ৩৩৪
প্রচ্ছদ : ডিলান
মুদ্রিত মূল্য : ৩২০ টাকা
সাধারণ কোন বিষয়কে সাধারণ ভাবে উপস্থাপন করতে পারাটা আমার মনে হয় অসাধারণত্বের পর্যায়ে পড়ে। মানুষের যাপিত জীবনকে একেবারে জীবনমুখী করে পাঠকের সামনে তুলে ধরতে পারাটাই একজন লেখকের সার্থকতা। বিখ্যাত জাপানি ঔপন্যাসিক হারুকি মুরাকামির সফলতা এই দিক থেকে একেবারেই প্রশ্নাতীত। তাঁর বিখ্যাত উপন্যাসগুলোর মধ্যে অন্যতম ‘নরওয়েজিয়ান উড’ নিয়ে রিভিউ লিখতে বসেছি। আর লেখা শুরু করার পর একটা ব্যাপার ভালো করেই বুঝতে পারছি যে, মুরাকামির লেখনীতে সৃষ্টি হওয়া ঘোর এখনো কাটেনি। প্রায় বড়সড় কলেবরের একটা উপন্যাস শেষ করার পর ঘোর কিছুটা থাকবেই। কিন্তু এমন মুগ্ধতার দেখা আমি আসলেই অনেকদিন পাইনি।
গল্পটা তরু ওয়াতানাবের। সাদাসিধা একটা ছেলে। প্রিয় বন্ধু কিজুকির রহস্যময় মৃত্যুর পর যার পৃথিবী ওলটপালট হয়ে যায়। নিজের জীবন সম্পর্কে গভীর এক ধারণা লাভ করতে থাকে ওয়াতানাবে সেই তখন থেকেই। সবকিছু ছেড়েছুড়ে দূরের এক শহরে নাট্যকলা নিয়ে পড়াশোনা শুরু করে। বসবাস শুরু করে একটা হোস্টেলের ডরমে। এই উপন্যাসের বেশ অনেকটা অংশ জুড়েই ওয়াতানাবের ডরম জীবনে ঘটে যাওয়া নানা ছোটবড় ঘটনার বর্ণনা দিয়েছেন মুরাকামি। একজন সাধারণ ছাত্র হিসেবে ওয়াতানাবের ছাত্রজীবন সম্পর্কে একটা সম্যক ধারণা লাভ করা সম্ভব হয়েছে এই অংশগুলো থেকে।
ওয়াতানাবের নিস্তরঙ্গ জীবন তরঙ্গায়িত হয় মৃত বন্ধুর প্রেমিকা নাওকোর আগমনে। ব্যাখ্যার অতীত এক সম্পর্কে জড়িয়ে যায় তারা দুজন। এ যেন এক অদ্ভুত অনুভূতি। মানসিক ভাবে কিছুটা বিপর্যস্ত নাওকো ওয়াতানাবের জীবনের একটা গুরুত্বপূর্ণ স্থান দখল করে ফেলে। আর নাওকোকে ঘিরেই আবর্তিত হতে থাকে তরু ওয়াতানাবের একসময়ের আপাত নির্লিপ্ত জীবনাচরণ।
কেটে যাওয়া দিনগুলোর এক ফাঁকে ওয়াতানাবের জীবনে আসে আরো একজন নারী। তারই সহপাঠী মিদোরি। স্বভাবে খোলামেলা ও স্বাধীনচেতা মিদোরি যেন তাকে জীবন সম্পর্কে নতুন করে ভাবতে শেখায়। যাবতীয় না পাওয়ার মাঝে এক টুকরো প্রাপ্তি হয়েই যেন মিদোরি ওয়াতানাবের জীবনে আসে। দুজন মানব-মানবীর একসাথে কাটানো সময়গুলো যেন দুজনেরই কাঠিন্যে ভরা জীবনের জন্য টনিকের কাজ করে। সবকিছুর পরে তরু ওয়াতানাবের জীবনে একটা প্রশ্নই জ্বলজ্বল করে ওঠে। তা হলো, কাকে বেছে নেবে সে? মানসিক সমস্যায় আক্রান্ত নাওকো, নাকি উদার মনের মিদোরি?
‘নরওয়েজিয়ান উড’-এর কাহিনিতে ওয়াতানাবে, নাওকো ও মিদোরি ছাড়াও আরও বেশ কিছু চরিত্রের সমাবেশ ঘটেছে। এদের মধ্যে রেইকো চরিত্রটার কথা আমার অনেকদিন মনে থাকবে। সমস্যার জর্জরিত নাওকোর প্রতি তার সহানুভূতি আর একইসাথে ওয়াতানাবের প্রতি নির্মল বন্ধুত্বপূর্ণ আচরণ আমাকে ভাবনার খোরাক যুগিয়েছে। সেই সাথে কাহিনির শেষাংশে ওয়াতানাবের সাথে তার আচরণ সন্ধান দিয়েছে মানবমনের এক আশ্চর্য রহস্যময় দিকের। রেইকো ছাড়াও অসম্ভব মেধাবী ও আলাদা মানসিকতার নাগাসাওয়াকেও দারুন শক্তিশালী একটা চরিত্র বলে মনে হয়েছে আমার কাছে।
ব্যক্তিগত মতামত : কিছু কাহিনি শুধু শেষই হয়না, সমাপ্তির পথে রেখে যায় একচিলতে হাহাকার। ‘নরওয়েজিয়ান উড’ তেমনই এক কাহিনি। ৩৩৪ পৃষ্ঠার একটা উপন্যাসের পাতায় পাতায় যে মানবজীবনের কতো মানবীয় অনুভূতি লুকায়িত থাকতে পারে তা এই বইটা না পড়লে বোঝা আসলেই শক্ত হতো। সত্যি কথা বলতে বইটা শুরু করার পর অতোটা আগ্রহ পাচ্ছিলামনা। কিন্তু একটা সময় খেয়াল করলাম, ‘নরওয়েজিয়ান উড’-এর গভীর জঙ্গলে আমি হারিয়ে গেছি। পুরোপুরি ডুবে গেছি হারুকি মুরাকামির অসামান্য এক জীবনমুখী উপাখ্যানে। শ্রদ্ধেয় হুমায়ূন আহমেদের লেখায় মুরাকামির যে প্রশংসা ছিলো, তা কথায় কথায় সত্য।
‘নরওয়েজিয়ান উড’ উপন্যাসে প্রচুর অ্যাডাল্ট কন্টেন্ট আছে। ‘১৮+ না হলে বইটা পড়া যাবেনা’ এমন কথাবার্তা আমি বলবোনা। বলেও লাভ নেই। নিষিদ্ধ যেকোন কিছুর প্রতি মানুষের আগ্রহ সেই আদিমকাল থেকে। যার পড়ার কথা, সে পড়বেই। যাই হোক, কাহিনির প্রয়োজনে এই ১৮+ ব্যাপারগুলো হয়তো প্রয়োজন ছিলো। উপন্যাসের চরিত্রগুলোর মনস্তত্ত্বের কাছাকাছি পৌঁছানোর জন্য এর হয়তো বিকল্পও ছিলোনা। আমার কাছে দৃষ্টিকটু লাগেনি।
এবার অনুবাদের ব্যাপারে আসি। কৌশিক জামানের প্রথম অনুবাদকর্ম হিসেবে তিনি ভালোই দেখিয়েছেন। সাবলীলতায় পরিপূর্ণ ছিলো অনুবাদ। পড়তে বসে তেমন কোন জটিলতার সম্মুখীন হইনি। ভবিষ্যতে আরো ভালো হবে। তবে বানান ভুল ও টাইপিং মিসটেক ছিলো বেশ ভালো পরিমাণে। এই সমস্যাটার সমাধানে মনোযোগী প্রুফরিডিং অতিব জরুরি। আশা করি বাতিঘর প্রকাশনী এই ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে। ডিলান সাহেবের প্রচ্ছদ বরাবরের মতোই দৃষ্টিনন্দন ছিলো।
আর দীর্ঘায়িত না করি। জানি, অনেকেই পড়ে ফেলেছেন। আর যারা এখনো পড়েননি, চাইলে পড়ে ফেলতে পারেন ‘নরওয়েজিয়ান উড’। আশা করি নিরাশ হবেননা।
রেটিং : ৪.৫/৫

See also  ম্যাসেজ মিজানুর রহমান আজহারি PDF Download | Message Mizanur Rahman azhari PDF Download

আজকে আমরা আপনাদের কে তাফসীরে তাবারী pdf free download । Tafsir Tabari Bangla pdf download লিংক দিয়েছি।

ADR Dider

This is the best site for all types of PDF downloads. We will share Bangla pdf books, Tamil pdf books, Gujarati pdf books, Hindi pdf books, Urdu pdf books, and also English pdf downloads.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
You cannot copy content of this page