Best Bangla PDF BooksMotivational Book PDF

পিএইচডির গল্প pdf download | phd er golpo asif nazrul PDF

আজকে আমরা আপনাদের কে পিএইচডির গল্প pdf download | phd er golpo asif nazrul PDF লিংক দিবো।

বইঃ পিএইচডির গল্প pdf download | phd er golpo asif nazrul PDF

লেখকঃ আসিফ নজরুল

Size: 3 MB

ড. আহমেদ ইফতেখার বিজয় নিউ ইয়র্কের নতুন বাসিন্দা। মার্চের তৃতীয় সপ্তাহে একদিন ফোন করে বললেন, ‘আপনার জন্য তো মাঝেমধ্যে ঢাকা থেকে বই-টই আসে। আমি একটা বই পড়তে চাই। বইটা কিভাবে পেতে পারি?’

কী বই? জানতে চাইলে বললেন, ‘ড. আসিফ নজরুলের পিএইচডি’র গল্প’র রিভিউ দেখলাম বেশ ভাল।’

হেসে দিয়ে বললাম, ওই বইতো এখন আকাশে এবং আপনার বাড়িতেই নামবে!

একইসঙ্গে বিস্মিত এবং খুশি হলেন তিনি। মজার ব্যাপার হলো, তাঁর এক নিকটাত্মীয়ই আমার জন্য কিছু বই বহন করে নিয়ে আসছিলেন। যথারীতি বইগুলো ড. বিজয়ের বাসায় এসে পৌঁছানোর পর তিনি আমাকে জানিয়ে প্যাকেট খুলে পিএইচডি’র গল্প পড়া শুরু করলেন। তার পড়া শেষ হোক- এমন ভাবনা থেকে ইচ্ছে করেই দু’দিন পর গেলাম বইগুলো আনতে। গিয়ে শুনি, হাতবদল হয়ে এরইমধ্যে অন্যবাড়িতে চলে গেছে পিএইচডি’র গল্প। তার মুখে প্রশংসা শুনে বইটির ‘হাইডিম্যান্ড’ তৈরী হয়েছে পরিচিতজনদের মধ্যে। অগত্যা অন্য বইগুলো নিয়ে ফিরলাম।

শেষ পর্যন্ত পিএইচডি’র গল্প’র নাগাল পেতে পার হয়ে যায় বেশ ক’দিন। এক হাত থেকে আরেক হাত। এভাবে ঘুরেছে বেশ ক’জন পাঠকের বাড়ি। অপেক্ষায় থাকতে থাকতে আমার অবস্থা হয় অনেকটা হাভাতের মতো। হাতে পাবার পর এক বসাতেই পড়ে শেষ করি ১১৮ পৃষ্ঠার বৈচিত্রময় এক জীবনের আংশিক এই গল্প। কতদিন আগে এমন করে কোনো বই এক বসায় শেষ করেছি মনে নেই। আমার বউ, লেখক-সাংবাদিক মনিজা রহমান অবাক হয়ে জিজ্ঞেস করে, কী আছে এই বইয়ে যে হঠাত্‌ তুমি এমন পড়ুয়া হয়ে গেলে!

পিএইচডি’র গল্পের কিছু টুকরো অংশ আগেই পড়েছি আসিফ ভাইয়ের ফেসবুক ওয়ালে। আগ্রহটা তৈরী হয়ে ছিল তখনই। ভেবেছিলাম কেবলই তাঁর পিএইচডি-সংগ্রামের সবিস্তার বর্ণনা এ বই। কিন্তু না, স্রেফ পিএইচডি’র এটি গল্প নয়। নয় গতানুগতিক কোনো জীবনের গল্পও। তাহলে কী? এক কথায় প্রকাশ করা মুশকিল। পড়তে পড়তে কখনও মনে হতে পারে সিনেমার কাহিনী। উপন্যাসের মতোও মনে হবে কারও কারও কাছে। অথচ নিজের জীবনের একটা অংশের বাস্তব ঘটনা-প্রবাহেরই সহজ বর্ণনা এটি!

See also  [PDF] ডার্ক মেডিউসা মাসুদ রানা pdf download | Dark Medusa Masud Rana PDF

কোনোরকম লুকোছাপা, কাটছাঁট নেই। নেই কোনো বাহুল্য প্যাঁচাল। কিছু কিছু ক্ষেত্রে কেবল আসিফ নজরুলের নয়, বহু মানুষেরই জীবনের গল্প হয়ে উঠেছে এ বই। সীমিত আয়ের নিম্ন-মধ্যবিত্ত শহুরে পরিবারের অদ্ভুত সব টানাপড়েন, উচ্ছল তারুণ্যের ঝলমলে সময়, ক্যাম্পাস জীবনে প্রেম-বন্ধুত্বের বর্ণিল কাহিনী, ঢাকাই সাংবাদিকতার উজ্জ্বল সময়ের চিত্র, অভিজাত আমলাতন্ত্রের মোহ এবং মোহভঙ্গের গল্প, বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক হওয়ার অভিজ্ঞতা, সীমাবদ্ধতার মধ্যেও পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের সোনালী অতীত, অচেনা দূরদেশে স্ট্র্যাগলের নানা অধ্যায়, পিএইচডি’র রকমফের নিয়ে মজার সব তথ্য আছে বইটিতে।

ব্যাক্তিগতভাবে আমার জন্য বাড়তি পাওয়া- বইয়ের শেষ ফ্ল্যাপে ছাপা হওয়া লেখকের ছবিটি যে বছর তিনেক আগে নিউ ইয়র্কের ব্রুকলিন ব্রিজে আমিই তুলে দিয়েছিলাম সেটার উল্লেখ।

পিএইচডি’র গল্প এরইমধ্যে অন্যতম বেস্টসেলার মর্মে খবর দেখেছি। জীবনের বাকি অধ্যায়গুলো নিয়েও নিশ্চয় এমন বই আরও লিখবেন আসিফ ভাই। তাঁর জন্য অনেক অনেক শুভকামনা।
বইটির প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান বাতিঘর এর অন্যতম কর্তাব্যক্তি কবি-বন্ধু জাফর আহমদ রাশেদের জন্যও শুভকামনা।

নামঃ নোশিন তাহসিন
বইয়ের নামঃ পিএইচডির গল্প


পিএইচডির গল্প নামের ১১৯ পৃষ্ঠার এই বইটা এর থেকে পারফেক্ট করে লেখা যেত না। নিজের গল্প এইভাবে নিজে বলতে পারাটা সহজ না। কোনো কিছু অতিরিক্ত বলা হয় নি, কোনো কিছুকে আলাদা করে গ্লোরিফাই করার চেষ্টা করা হয় নি, সবকিছু নিয়ে ঠিক যতটুকু বলা যথেষ্ট ঠিক ততটুকুই বলেছেন লেখক। অল্প কথায়ই বলা হয়ে গেছে অনেক কিছু। তার নিজের ভাষায়ই বলি – “এই গল্প মানুষের জিতে যাওয়ার গল্প। এমন বিজয় আমাদের সবার জীবনে যদি নাও থাকে, তাকে ভালোবাসে না এমন মানুষ বোধহয় নেই একজনও।” আমার সবসময় মনে থাকবে এমন একটা বই এটা।

এসএসসিতে স্ট্যান্ড করা আসিফ নজরুল ভর্তি হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগে। তার বাবার ইচ্ছায়। পিএইচডির গল্প বইয়ে তিনি বলেছেন তার লালবাগের বাসা, বাবা-মা-ভাই-বোন-আত্মীয়দের গল্প, কলেজের গল্প, সাংবাদিকতার গল্প, বিচিত্রায় লেখালেখির কথা, বিসিএস দিয়ে ম্যাজিস্ট্রেট হয়ে মাত্র ৩৬ দিন চাকরির কথা। একঘেয়ে লাগায় সেই চাকরি ছেড়ে তিনি যোগ দেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনের প্রভাষক হিসেবে। তার মাত্র নয়দিন পর যোগ দেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগে। ততদিনে বই প্রকাশ হতে থাকে তার। এরই মধ্যে কমনওয়েলথ স্কলারশিপে পিএইচডি করতে যান ইউনিভার্সিটি অফ লন্ডনে। পড়াতে পছন্দ করতেন, লিখতে পছন্দ করতেন। পিএইচডি করার খুব একটা ইচ্ছা তার ছিল না। দেশ ছেড়ে যাবার সময় তাই মন খারাপও হল। কিন্তু পরিবারের কথা ভেবে গেলেন শেষ পর্যন্ত।

See also  কমান্ডো রাজিব হোসেন pdf download | Commando Rajib hossain pdf download

এই বইয়ে তিনি বলেছেন তার সাড়ে চার বছরের পিএইচডির সূচনাপর্ব, মেহনতিপর্ব আর মরিয়াপর্বের কথা। বলেছেন লন্ডন হাউজের গল্প, বেবিসিটার হওয়ার গল্প, গুজ প্লেসের বাসার গল্প, তার সুপারভাইজার ফিলিপের কথা, যিনি একেবারে শুরুর দিকে বিস্মিত হয়েছিলেন তার গবেষণার নিম্নমান ও অগভীরতায়, তার প্রবল তাচ্ছিল্যে লন্ডনের ফুটপাতে বসে কাঁদার কথা। শেষে ফিলিপের প্রতি কৃতজ্ঞতাও জানিয়েছেন তিনি।

আসিফ নজরুলের পিএইচডির টপিক ছিল আন্তর্জাতিক নদী আইন। ১৯৯৪ এ তার পিএইচডি থিসিস শুরুর দিকে ভারত বাংলাদেশের মধ্যে কোনো চুক্তি স্বাক্ষরিত হবে না ধরে নিয়ে গঙ্গা নদীর ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক আইন দূর্বল এমন একটা সেন্ট্রাল থিমের ওপর পিএইচডি থিসিস লেখা শুরু করেন তিনি৷ ১৯৯৬ এর ডিসেম্বরে দু’দেশের মধ্যে গঙ্গা চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। মাথায় আকাশ ভেঙে পড়ে তার৷ আগের সেন্ট্রাল থিম বদলাতে হয়, লিখে ফেলা চ্যাপ্টারগুলো অনেক পরিবর্তন করতে হয়। তখন তার স্কলারশিপও শেষের দিকে৷ সময় খুব কম।

শেষদিকে তার ছিন্নভিন্ন মানসিক অবস্থায় তার পাশের বাড়িতে ওঠেন তার কলিগ, আইন বিভাগের শিক্ষক লিয়াকত আলী সিদ্দিকী। তার সাথে আসিফ নজরুল চলে যান লিডসের একটি মসজিদে তবলিগে। তারপর এসে শুরু করেন অমানুষিক কষ্ট৷ তার মা চলে যান হজে। ছেলের জন্য প্রার্থনা করতে। ১৯৯৯ এর ২৬ মে তার ডিফেন্সের দিন তার সুপারভাইজার তাকে বলেন “লুক নাজরুল, দিস ইজ ইওর থিসিস, ইয়োর ডিফেন্স। ইফ ইউ ক্যান্ট মেক দিস, দিস ইজ নট মাই ফল্ট।” তার ডিফেন্সের ফলাফল কী হয়? ডিফেন্স শেষে তার সুপারভাইজার তাকে জড়িয়ে ধরে বলেন “ইউ হ্যাভ ডান এক্সট্রিমলি ওয়েল। আই এম প্রাউড অফ ইউ।” আসিফ নজরুল ভুলে যান সাড়ে চার বছরের অপমান আর অবহেলার কথা। মাকে আর স্ত্রীকে রেজাল্ট জানিয়ে ছুটে যান গুজ স্ট্রিটের মসজিদে, সেজদায় পড়ে শুরু করেন কান্না।

See also  [PDF] গুপ্তবিদ্যা মাসুদ রানা pdf download | Guptobidya PDF

তার একজন সিনিয়র তাকে একবার বলেছিলেন “তোর যখন পিএইচডি হবে তখন এইসব দিন মিস করবি। আমাকে যদি আবার কেউ ফান্ড দেয় আমি খুশি হয়ে আরেকটা পিএইচডি করব।” তার গা জ্বলে যেত এইসব শুনে। এখন এত বছর পরে আসিফ নজরুলেরও তাই মনে হয়। পিএইচডি শেষ করে আর লেখাপড়ার ধারেকাছেও যাবেন না এমন সংকল্প করার পরও তাই জার্মানি আর ইংল্যান্ডে কাজ করেছেন পোস্ট ডক্টরাল ফেলো হিসেবে। তার পিএইচডির গল্প বইয়ে তিনি বলেছেন তার আশেপাশের এই মানুষগুলোর মমতার গল্প, বলেছেন অনেকের অবহেলা আর তাচ্ছিল্যের গল্প। বলেছেন সাহস আর ঘুরে দাঁড়ানোর গল্প। এই গল্পটা নিজের উপর অগাধ বিশ্বাসের, এই গল্পটা আত্ম-অনুসন্ধানের। আবার বলি – এই বইটা এর থেকে পারফেক্ট করে আর লেখা যেত না।

পিএইচডির গল্প pdf download | phd er golpo asif nazrul PDF

Click here to download

ADR Dider

This is the best site for all types of PDF downloads. We will share Bangla pdf books, Tamil pdf books, Gujarati pdf books, Hindi pdf books, Urdu pdf books, and also English pdf downloads.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
You cannot copy content of this page